Home / Uncategorized / শ্যালিকাকে কু-প্রস্তাবের দায়ে এবার শ্রী-ঘরে সীতাকুন্ডের এক লম্পট দুলাভাই !

শ্যালিকাকে কু-প্রস্তাবের দায়ে এবার শ্রী-ঘরে সীতাকুন্ডের এক লম্পট দুলাভাই !

অনেক ক্ষেত্রে কিছু কিছু দুলাভাইয়ের ‘অন্যায় আবদার’ আর অশালীন আচরনের প্রতিবাদ না করে সাধারনত অনেক শ্যালিকারাই চুপ করে থাকেন। অনেকেই আবার বোনের ‘সুখের কথা’ ভেবে হয়তো একপ্রকার করে ‘আপোষ’ করে থাকেন! এতে করে সমস্যা প্রকট হয় আরও বেশি, সেই সাথে বাড়ে নিত্য নতুন অপরাধ। তবে এবার সে সব অন্যায়কে প্রশ্রয় না দিয়ে দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে সীতাকুণ্ড থানায় উপস্থিত হয়ে রীতিমত আইনি ব্যবস্থা নিয়ে তাকে শ্রীঘরে পাঠিয়েছেন এক শ্যালিকা।পরিবার ও সচেতন পাঠক মহলের পক্ষ থেকে এই ‘সাহসী শ্যালিকাকে’ অভিনন্দন। এভাবেই গর্জে উঠুক নিপীড়িত নারীরা।

সীতাকুন্ডু প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর: শ্যালিকার সাথে প্রত্যেকটির ভগ্নিপতিরই মধুর সম্পর্ক থাকে। তবে সেই সম্পর্ক ততক্ষনই মধুর থাকে যতক্ষণই একে অপরের উপর বিশ্বাস ও নিখাদ ভালোবাসার জায়গাটি অবিচল থাকে সঠিক অর্থে । কিন্তু সেই সম্পর্কটি যখন ভিন্নখাতে প্রভাবিত করতে চায় কোন লম্পট চরিত্রের দুলাভাই তখন সেই বিশ্বাসের জায়গাটিতে আঘাত আসে, প্রশ্নবিদ্ধ হয় সম্পর্ক। আর দিনের পর দিন সচেতনতা আর সামাজিক লজ্জার কথা ভেবে উলটো নিপীড়িতদের চুপ থাকায় বাড়ে অপরাধের মাত্রা। কিন্তু ব্যতিক্রমটাও থাকে। আপাতদৃষ্টিতে অনেকের কাছেই ‘গুরুত্বহীন’ মনে হলেও শুধুমাত্র সামাজিক সচতনতার জন্যই সময়ের কণ্ঠস্বর বিভিন্ন সময়ে সচেতন পাঠক মহলে তুলে ধরতে চায় ভিন্ন মাত্রার কিছু সংবাদ। আজকের সংবাদটিও ‘সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্য থেকেই প্রকাশিত।

ঘটনাস্থল, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলা। গ্রেফতারকৃত ভগ্নিপতির নাম লিটন চন্দ্র দাস (২৮)। সে উপজেলার ঘোড়ামরা এলাকার মানিক চন্দ্র দাসের ছেলে। দীর্ঘদিন ধরেই স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিলোনা তার। তবে প্রতিনিয়ত স্ত্রী কে এড়িয়ে চললেও ছোট শ্যালিকার দিকে ‘কু-দৃষ্টি’ ছিলো লিটনের।অনেকবার বুঝিয়ে যখন কাজ হয়নি, তখন সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেননি শ্যলিকা (নাম প্রকাশ করা হলোনা)।

অভিযোগকারিনি শ্যালিকার ভাষ্যমতে, বোনের সুখের কথা ভেবে এতদিন কৌশলে জামাইবাবুর ‘নষ্ট দৃষ্টি’ এড়িয়ে চলার চেষ্টা করেছিলো সে। প্রথম দিকে ভেবেছিলো হয়তো দিদির সংসারে সুখ ফিরে আসবে’। কিন্তু জামাইবাবুর ক্রমাগত টিজিং আর নোংরা কথায় অতিষ্ঠ হয়ে অবশেষে পুলিশে অভিযোগ করে সে।সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইফতেখার হাসান সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, শ্যালিকার দেয়া অভিযোগের ভিত্তিতেই ভগ্নিপতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ । বুধবার উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের উত্তর ঘোড়ামরা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ঘটনা সূত্রে জানা যায় যে, গত বছর আগে লিটন চন্দ্র দাসের সঙ্গে ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ এলাকার পলি দাসের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্ত্রী পলির ওপর নির্যাতন শুরু করে লিটন। এ নির্যাতন সইতে না পেরে গত ৬ মাস আগে বাপের বাড়িতে চলে আসে পলি।এরপর লিটন বারবার তার শ্যালিকার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করত এবং নানা উপায়ে কুপ্রস্তাব দিত। ফেইসবুকেও প্রতিনিয়ত উত্ত্যক্ত করত তাকে।বুধবার লিটনের স্ত্রী ও শ্যালিকা সীতাকুণ্ড থানায় উপস্থিত হয়ে অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ লিটন চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে ইভটিজিং ও নারী-শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রেকর্ড করে।সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইফতেখার হাসান সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, লিটন স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক না রেখে শ্যালিকাকে কুপ্রস্তাব দিতে থাকে। এ ঘটনায় মামলা করলে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আব্দুলপুর-রাজশাহী ডাবল লাইন করতে রেলমন্ত্রীর নির্দেশ
আব্দুলপুর হতে রাজশাহী পর্যন্ত সিঙ্গেল ব্রডগেজ রেললাইনটি ডাবল লাইনে উন্নীত করার জন্য রেলমন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন, এমপি বরাবর ডিও লেটার দিয়েছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।আজ বৃহস্পতিবার ডিও লেটার প্রদানের পরিপ্রেক্ষিতে রেললাইনটি ডাবল লাইনে উন্নীত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেছেন রেলমন্ত্রী।

রেলমন্ত্রীকে দেওয়া ডিও লেটারে মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন উল্লেখ করেন, ‘যোগাযোগ ব্যবস্থা যত বেশি ভালো হবে শিল্পের প্রসারসহ অর্থনৈতিক উন্নয়ন তত বেশি গতিশীল হবে। অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে রেলপথের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সাম্প্রতিককালে রাজশাহী’র সাথে রাজধানীর সরাসরি রেল যোগাযোগ স্থাপিত হওয়ায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে এক অভূতপূর্ব পরিবর্তন সাধিত হয়েছে।

আব্দুলপুর হতে রাজশাহী পর্যন্ত সিঙ্গেল ব্রডগেজ রেললাইন থাকার কারণে সাবলীল রেল যোগাযোগে কিছু প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হওয়ার কারণে মানুষ রেলপথে পরিপূর্ণ সেবা গ্রহণ করতে পারছে না। এতে করে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়ন ব্যহত হচ্ছে। উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে প্রয়োজন যোগাযোগ ব্যবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন। সেই প্রেক্ষাপট বিবেচনায় রাজশাহী-আব্দুলপুর সিঙ্গেল ব্রডগেজ রেললাইনটি ডাবল লাইনে উন্নীত করা প্রয়োজন। ডাবল লাইন নির্মিত হলে রাজশাহীর সাথে সরাসরি পার্শ^বর্তী দেশ ভারতসহ চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বগুড়া, রংপুর ও লালমনিরহাট ইত্যাদি স্থানে সাবলিল ট্রেন যোগাযোগ স্থাপিত হবে। এতে করে যাত্রীসেবা বৃদ্ধির পাশাপাশি মালামাল পরিবহণ বৃদ্ধি পাবে এবং অর্থনীতির চাকা আরও বেগবান হবে বলে বিশ্বাস করি।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘সার্বিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় আব্দুলপুর হতে রাজশাহী পর্যন্ত সিঙ্গেল ব্রডগেজ রেললাইনটি ডাবল লাইনে উন্নীতকরণের বিকল্প নেই। সেজন্য এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে রেলমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছি। তিনি ইতোমধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। আশা করছি আমার নির্বাচনী এই প্রতিশ্রুতিও দ্রুত বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।’

উল্লেখ্য, রাজশাহী-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন চালুকরণ সিটি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি প্রতিশ্রুতি ছিল। গত ২৫ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক রাজশাহী-ঢাকা প্রথম বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেন উদ্বোধনের মাধ্যমে মেয়র লিটনের এই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন হয়।
বৃহস্পতিবার, জুলাই ১১, ২০১৯

About admin

Check Also

সহবাসে’র শুটিং শুরু তাদের!

ছেলেটি কলকাতার কর্পোরেট সেক্টরে কাজ করে। আর মেয়েটি ক্রিয়েটিভ অ্যাড এজেন্সির সঙ্গে জড়িত। ছবিটির গল্প …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *