Home / Uncategorized / বিয়ের আগে যেভাবে নিখিলের সঙ্গে প্রেমে মেতেছিলেন নুসরত!

বিয়ের আগে যেভাবে নিখিলের সঙ্গে প্রেমে মেতেছিলেন নুসরত!

আলাপটা হয়েছিল তিনবছর আগে। নিখিল জৈনের পোশাকের ব্র্যান্ড ‘রঙ্গোলি’র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে আসেন নুসরত জাহান। সেই থেকেই পরিচয়। প্রথম থেকেই নুসরতের প্রতি একটা ভাল লাগা ছিলই। কিন্তু আলাপের পর দু’বছর পর্যন্ত ক্লায়েন্টের মতোই নিখিলের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেছিলেন নুসরত।কিন্তু ধীরে ধীরে বরফ গলতে শুরু করে নুসরতের। তাদের মধ্যে তৈরি হয় গভীর সম্পর্ক।

আর সেই সম্পর্কই তুরস্কের বোদরুম শহরের ‘সিক্স সেন্সেস কাপালায়াঙ্কা’য় পরিণতি পেয়েছে। তাদের বিয়ের ছবি দেখার জন্য তর সইছিলো না নুসরতের ভক্তকুল। তবে অপেক্ষা করতে হয়েছিল একটু বেশিই। বিয়ের পরদিন ভোরে ছবি পোস্ট করেছিলেন নায়িকা নিজেই। এ বার সামনে এল নুসরত ও নিখিলের প্রি-ওয়েডিং ভিডিও। বিয়ের আগেই ‘নটিং বেলস’ নুসরত আর নিখিলকে নিয়ে প্রি-ওয়েডিং শ্যুট করেছিল। আর সেই ভিডিওটিও মন জয় করে নিয়েছে নায়িকার ভক্তদের।

মিয়ানমার সরকারের ওপর চলমান সঙ্কট অগ্রাহ্যের অভিযোগ জাতিসংঘের
মিয়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে রাখাইন সমস্যা সমাধানে অসহযোগিতা ও সেখানে চলমান সঙ্কটকে অগ্রাহ্য করার অভিযোগ তুলেছে জাতিসংঘ। রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিষয়ে দেশটির সরকারি নীতির তীব্র সমালোচনাও করে বিশ্ব সংস্থা মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন। এর মধ্যেই দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে হামলা চালানোর অভিযোগ করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ- HRW.। এ অবস্থায় সংঘাতপূর্ণ রাখাইনে সাংবাদিক প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে মিয়ানমার সরকার।

গত অক্টোবরে রাখাইনে সেনা অভিযান শুরুর পর থেকেই সেখানে সাংবাদিক ও আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের প্রবেশাধিকার না থাকায় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পাওয়া যাচ্ছিলো না। কিন্তু বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের লোমহর্ষক বর্ণনা, গোপন ক্যামেরায় ধারনা করা ভিডিও ও স্যাটেলাইট ছবির বরাতে, সেখানে গণহত্যাসহ বিভিন্ন নির্যাতনের খবর প্রকাশ করে গণমাধ্যম।

এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার হিউম্যান রাইটস ওয়াচ প্রকাশিত নতুন এক প্রতিবেদনে বলা হয়, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে হামলা জোরদার করেছে মিয়ানমার সরকার। বেশকিছু ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার পাশাপাশি সেনা সদস্যরা রোহিঙ্গাদের রাখাইন ছেড়ে যেতে বাধ্য করছে দাবি করে HRW.। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থাও জানায়, তারা প্রতিদিনই বিভিন্ন মাধ্যমে রাখাইনে হত্যা, নির্যাতন ও ধর্ষণের মতো বর্বরতার খবর পাচ্ছে। মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর নোবেল জয়ী অং সান সুচি বিষয়টি এড়িয়ে চলছেন বলেও অভিযোগ করেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জাইদ রাদ আল হুসেইন।

সট: জাইদ রাদ আল হুসেইন, মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান, জাতিসংঘ মিয়ানমার সরকার বারবার রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে অস্বীকার করে আসছে। এমনকি তারা বিষয়টি নিয়ে স্বাধীন তদন্তের ক্ষেত্রেও প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করছে না। সরকার যদি কিছু গোপন নাই করেন, তবে তারা কেন সেখানে বাইরের লোকজনের প্রবেশাধিকার দিচ্ছেন না। বিশ্ব সম্প্রদায়ের তীব্র সমালোচনার ধারাবাহিকতায় অবশেষে রাখাইনে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিয়ানমার। তবে এ জন্য নির্দিষ্ট তারিখ বেধে দেয়া হয়েছে।

আগামী সোম থেকে বুধবার এই ৩ দিন নিরাপত্তা বাহিনীর প্রহরায় ১৩ জন সাংবাদিক রাখাইনের মংডু পরিদর্শন করবেন বলে জানায় দেশটির তথ্য মন্ত্রণালয়। পরে আরও সাংবাদিক ও পর্যবেক্ষকদের প্রবেশাধিকার দেয়া হবে বলেও জানানো হয়। তবে প্রথম দফায় কোন কোন গণমাধ্যম প্রতিনিধিকে রাখাইন পরিদর্শনের সুযোগ দেয়া হচ্ছে তা প্রকাশ করা হয়নি। এর আগে রাখাইন নিয়ে আগামী সোমবার ইয়াঙ্গুনে আসিয়ান-এর পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক আহ্বান করেন স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচি। গত অক্টোবরে রাখাইনের এক নিরাপত্তা চৌকিতে সন্ত্রাসী হামলার জের ধরে ওই অঞ্চলের রোহিঙ্গা মুসলমান অধ্যুষিত এলাকায় অভিযানের নামের সেনা নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। এসব সহিংসতায় শতাধিক মানুষের মৃত্যু ও শরণার্থী হয় ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ।

About admin

Check Also

সহবাসে’র শুটিং শুরু তাদের!

ছেলেটি কলকাতার কর্পোরেট সেক্টরে কাজ করে। আর মেয়েটি ক্রিয়েটিভ অ্যাড এজেন্সির সঙ্গে জড়িত। ছবিটির গল্প …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *