Home / Uncategorized / ‘স্ত্রীর সঙ্গে আমার মিলন ছিলো যুদ্ধের মতো!

‘স্ত্রীর সঙ্গে আমার মিলন ছিলো যুদ্ধের মতো!

তার সাথে যৌ’নমিলন করাটা ছিল একটা যুদ্ধের মতো। সে যে কাপড়ই পরে থাকুক – আমি তা ছিঁড়ে ফেলে দিতাম।” কথাগুলো একজন স্বামীর। তিনি বর্ণনা করছেন কিভাবে তিনি তার স্ত্রীকে ধর্ষণ করতেন, তার সাথে কিরকম আচরণ করতেন। এই স্বামীটির নাম মোইসেস বাগউইজা। গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের পূর্বাঞ্চলীয় গ্রাম রুৎশুরুর বাসিন্দা তিনি। পৃথিবীর যে দেশগুলোতে যৌন সহিংসতার মাত্রা সবচেয়ে বেশি তার একটি হচ্ছে কঙ্গো।

তার স্ত্রী জুলিয়েন বাগউইজা বলছেন, তার স্বামীর মেজাজ খারাপ থাকলে সহিংসতা ছাড়া কোন যৌনমিলনই হতে পারতো না। বাগউইজা এখন তার যৌন সহিংসতার জন্য দু:খিত বোধ করেন। বিবিসির কাছে তিনি অনুতাপের সাথেই বর্ণনা করছিলেন বিশেষ করে একটি ঘটনার কথা। তখন তার স্ত্রী চার মাসের অন্ত:সত্বা। তিনি স্থানীয় মেয়েদের এক সমবায় প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে গোপনে কিছু টাকা জমাচ্ছেন, এ কথা জানার পর স্বামী দাবি করলেন, তাকে এক জোড়া জুতো কেনার টাকা দিতে হবে। স্ত্রী তা দিতে অস্বীকার করায় তার পেটে লাথি মারেন মি. বাগউইজা।

“আমি ঘুরে দাঁড়িয়ে তার পেটে একটা লাথি মারলাম” – বলছিলেন তিনি, তাতে তার স্ত্রী মাটিতে পড়ে গেলেন, তার দেহ থেকে রক্ত বেরুতে লাগলো। তার প্রতিবেশীরা ছুটে এলেন, তাকে হাসপাতালে নেয়া হলো। বাগউইজা বললেন, “এটা ঠিক যে ওই টাকাটা তারই ছিল, কিন্তু আজকাল যেমন হয় যে মেয়েদের হাতে অর্থ থাকলে তারা নিজেদের ক্ষমতাবান মনে করে এবং তারা সেটা প্রদর্শন করে।”

তার গ্রামের একজন নির্মাণকর্মী বিবিসিকে তার জীবনের কথা বলেন। তার ভাষায়, সহিংসতা ছিল তার স্ত্রীর সাথে যোগাযোগের একমাত্র উপায়। “আমি তাকে নিজের সম্পদ বলে মনে করতাম” – তিনি বলছেন, “আমি ভাবতাম আমি তার সাথে যা খুশি তাই করতে পারি। “যেমন ধরুন, আমি বাড়ি ফিরলাম – স্ত্রী আমাকে কিছু একটা জিজ্ঞেস করলো। অমনি আমি তাকে একটা ঘুষি মারলাম।”পৌরুষ সম্পর্কে আফ্রিকার পুরোনো ধ্যানধারণা:

অর্থ উপার্জনকারী মেয়েদের ব্যাপারে আফ্রিকান পুরুষদের মনে যে লুকোনো বিরাগ রয়েছে – অনেকের মতে সেটাই হলো আধুনিক আফ্রিকান পুরুষদের সংকটের মূল।
বহুকাল ধরে এ মহাদেশে পুরুষরা বেড়ে উঠেছে এই ধারণা নিয়ে যে – পুরুষ মানেই হলো শক্তি, যার ক্ষমতা আছে তার নিজের পরিবারকে খাদ্য ও সুরক্ষা দেবার।
কিন্তু এখন পুরুষদের মধ্যে বেকারত্বের হার উচ্চ, অন্যদিকে নারীরা অনেকে চাকরি করছে, তাদের ক্ষমতায়ন হচ্ছে ক্রমশ। তাই চিরাচরিত সেই পুরুষের ভুমিকা পালন করা এখন কঠিন হয়ে উঠছে। বাগউইজার মতে, অর্থনৈতিকভাবে স্বাধীন একজন নারীকে মনে করা হয় পৌরুষের প্রতি সরাসরি হুমকি হিসেবে।

রোহিঙ্গা নির্যাতন: স্বাধীন তদন্তের দাবি মিয়ানমারের সুশীলসমাজের
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের ঘটনার আন্তর্জাতিকভাবে স্বাধীন তদন্তের দাবি জানিয়েছেন দেশটির ৪০টিরও বেশি সুশীল সমাজের সংগঠন। বুধবার সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাখাইন রাজ্যে মুসলিম রোহিঙ্গা এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষ কয়েক দশক ধরেই মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার হয়ে আসছে।

মিয়ানমারের সুশীল সমাজের সংগঠনের দেয়া ওই বিবৃতিতে একটি আন্তর্জাতিক স্বাধীন তদন্ত কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়েছে। যে কমিটি রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি পুরোপুরিভাবে তুলে আনবে এবং ভবিষ্যতের সমস্যা সমাধানে সরকারকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার ব্যাপারে কার্যকর সুপারিশ করবে। জাতিগত দ্বন্দ্বের জের ধরে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বসবাসরত মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালিয়ে আসছে সেদেশের সেনাবাহিনী।

বিশ্বের উচু ভবনগুলোর ৬৩ শতাংশই এশিয়ায়
বিশ্বের উচু ভবনগুলোর দুই তৃতীয়াংশই এশিয়ায় অবস্থিত। কাউন্সিল অব টল বিল্ডিংসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের উচু ভবনগুলোর মধ্যে ৬৩ শতাংশই এশিয়ায় অবস্থিত। এরমধ্যে পূর্ব এশিয়ায় অন্তত ৩ হাজার ৬শ’ উচু ভবন অবস্থিত। যেগুলোর উচ্চতা সর্বোচ্চ দেড়শো মিটার। চীনে উচু ভবন রয়েছে অন্তত ২ হাজার ৩শ’ টি। উত্তর আমেরিকার চেয়ে বেশি সুউচ্চ ভবন রয়েছে এশিয়ায়। যুক্তরাষ্ট্রে উচু ভবন রয়েছে ৯শ’ ৪৩ টি। এছাড়াও ৩শ’ মিটারের সুউচ্চ ভবন রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। দুবাইয়ের বুর্জ খলিফা বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উচু ভবন হিসেবে পরিচিত। এটির উচ্চতা ৮শ’ ২৮ মিটার। এর পরের অবস্থানে রয়েছে সাংহাইয়ের সাংহাই টাওয়ার।

About admin

Check Also

গাড়ির মধ্যে অন্তরঙ্গ কার্তিক-সারা ক্যামেরায় ধরা!

নবাবনন্দিনী সারা আলি খান বলিউডে পা রাখতেই আলোচনায়। তিনি মাত্র দু’টি ছবি দিয়েই নিজেকে প্রমাণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *