Home / Uncategorized / যুক্ত হল নতুন সুবিধা ম্যাসেঞ্জারে !

যুক্ত হল নতুন সুবিধা ম্যাসেঞ্জারে !

ইন্টারনেটে কথা বা চ্যাটিংয়ের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার। এবার ম্যাসেঞ্জার ব্যবহারকারীদের জন্য যুক্ত হল নতুন সুবিধা। নতুন নতুন আপডেট ভার্সন নিয়ে বরাবরই হাজির হয়ে থাকে ম্যাসেঞ্জার। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জারে চালু হয়েছে বুমেরাং ও সেলফি ফিচার। এর পাশাপাশি ম্যাসেঞ্জার ব্যবহারকারীরা এখন থেকে এআর স্টিকারও ব্যবহার করতে পারবেন। সোমবার ফেসবুকের এক ব্লগ পোস্টে বলা হয়, ম্যাসেঞ্জার ক্যামেরায় এখন ৫টি মোড পাওয়া যাবে।

এর মধ্যে ভিডিও লুপিং ইফেক্ট দেয়ার বুমেরাং সুবিধা রয়েছে। বুমেরাং ফিচারটির কারণে ম্যাসেঞ্জার পোস্ট আরও বেশি মজার হবে। নতুন এই ফিচারে ইনস্টাগ্রামের মতো ছোট, লুপড ভিডিও বানাতে পারবেন ব্যবহারকারীরা। এটি অনেকটা অ্যানিমেটেড জিপের মতো হবে। এর বাইরে ম্যাসেঞ্জার ক্যামেরায় সেলফি মোড যুক্ত হচ্ছে। এতে ব্যবহারকারী নিজের বা বন্ধুর পোর্ট্রেট মোড ধারণ করতে পারবে। এতে বোকেহ ইফেক্ট যুক্ত করা যাবে।

এতে ছবির বিষয়বস্তুকে প্রাধান্য দিয়ে এর পেছনের বিষয়গুলোকে অনুজ্জ্বল দেখাবে। ফেসবুক জানিয়েছে, ম্যাসেঞ্জারের বর্তমান ক্যামেরা মোড হিসেবে থাকা নরমাল, ভিডিও এবং টেক্সট আরও সহজে পরিচালনা করা যাবে। ম্যাসেঞ্জার ব্যবহারকারীদের সুবিধার জন্য অগমেন্টেড রিয়্যালিটি (এআর) স্টিকার আনা হচ্ছে। এসব স্টিকার স্পর্শ করে টেনে আনা যাবে এবং তা ছবি ও ভিডিওতে যুক্ত করা যাবে। এখন প্রতিদিন দুই কোটির বেশি গ্রাহক ম্যাসেঞ্জারে ক্যামেরা ইফেক্ট ব্যবহার করেন এবং এতে প্রতিদিন অন্তত ৪৪ কোটি স্টিকার পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে ফেসবুক।

বাণিজ্য মেলা: ক্রেতা-দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ
শেষ দিকে এসে জমজমাট ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। ২৯তম দিনে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে মেলা প্রাঙ্গণ। রোববার সকাল থেকেই মাসব্যাপী মেলায় আসতে থাকেন নানা বয়সী ক্রেতা-দর্শনার্থীরা। সন্ধ্যার পরে দর্শনার্থীদের ভিড় রূপ নেয় জনস্রোতে। গৃহস্থালী পণ্যের পাশাপাশি পোশাক, গহনাসহ বিভিন্ন পণ্যের দোকানে ক্রেতাদের উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো। পণ্য বিক্রি বাড়াতে এসব স্টলে বিশেষ ছাড় ও অফার দিয়েছেন বিক্রেতারা। শেষ মুহূর্তে বিকিকিনি ভাল জানিয়ে মেলার সময় কয়েক দিন বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

‘ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর নজরদারি বাড়াতে হবে’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর নজরদারি বাড়াতে হবে। সজাগ থাকতে হবে অভিভাবক ও শিক্ষকদের। রোববার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অতীতে বিএনপি-জামায়াত সরকারের সময় সন্ত্রাসের যে বীজ বপন করা হয়েছিল, এখন তারই বিস্তার ঘটেছে।

ঈদের ছুটির পর প্রথম কার্যদিবসেই নিজ কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতির পাশাপাশি উঠে আসে বিভিন্ন ক্ষেত্রে গৃহীত সরকারের নীতিমালাগুলো। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে আসে সম্প্রতি দেশে ঘটে যাওয়া বর্বরোচিত জঙ্গি হামলা প্রসঙ্গ। তিনি বলেন, অতীতের সরকারগুলো সন্ত্রাসবাদের যে বীজ বপন করেছে, তাই এখন বিস্তার লাভ করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দেখছি সারা বিশ্বে জঙ্গিবাদ ছড়িয়ে পড়ছে। বাংলাদেশ এর থেকে কিন্তু খুব বেশি দুরে ছিল না। কারণ, এই বাংলাদেশে আমি নিজেই গ্রেনেড হামলার শিকার। এই ধরনের জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসীদের যারা সৃষ্টি করে রেখে গেছে, যারা তৈরি করে রেখে গেছে, একবার বীজ বপন করলে সেটা সহসা উৎখাত করা যায় না।’ এ সময়, গুলশান হামলার ঘটনায় বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে নজরদারি বাড়াতে হবে।

গুলশানের জঙ্গি হামলা ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘গোয়েন্দা সংস্থাগুলো রিপোর্ট দিচ্ছিল, আমরা খুব সচেতনও ছিলাম। কিন্তু গুলশানে যে ঘটনাটা ঘটল- আমার মনে হয় পৃথিবীতে কোনো দেশ এত দ্রুত সময়ে এই ধরণের একটা ঘটনা ঘটলে সেখান থেকে জীবন্ত মানুষ উদ্ধার করা- এটা কিন্তু আজ পর্যন্ত কোন দেশ পারেনি। কোনও উন্নত দেশও পারেনি।’

পরে অভিভাবকের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘উচ্চ শিক্ষিত পরিবারের ছেলেরা, ইংলিশ মিডিয়ামে পড়াশুনা করে। আমরাতো ভাবি যে তাদের মন অনেক উদার হবে। তারা সত্যিকারের সঠিক ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান নেবে কিন্তু তারা যে ধর্মান্ধ হয়ে যাবে সেটি কখনও আমরা ভাবতে পারিনি।’ এছাড়াও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়াকে দুঃখজনক উল্লেখ করে তিনি বলেন, কারা তাদের বিপথগামী করছে তা খুঁজে বের করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘তাদেরকে বিভ্রান্তির পথে কারা নিয়ে যাচ্ছে? ওই সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক যারা তাদের ভিতরেও কারা আছে যে শিক্ষার্থীদের বিপথে নিয়ে যাচ্ছে?’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এ জন্য ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর নজরদারি বাড়াতে হবে। সজাগ থাকতে হবে অভিভাবক ও শিক্ষকদের।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, শত বাধা ডিঙ্গিয়ে হলেও জঙ্গিবাদ মুক্ত দেশ গড়বে সরকার। বাংলাদেশকে অভিশাপ মুক্ত করতে হবে আর সেটি আমরা করবোই।

About admin

Check Also

সহবাসে’র শুটিং শুরু তাদের!

ছেলেটি কলকাতার কর্পোরেট সেক্টরে কাজ করে। আর মেয়েটি ক্রিয়েটিভ অ্যাড এজেন্সির সঙ্গে জড়িত। ছবিটির গল্প …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *